জুন ২৩, ২০২৪ ৯:১৫ পিএম

আওয়ামীলীগ নেতার অন্তরঙ্গ ভিডিও ভাইরাল; শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

নওগাঁর সাপাহারে এক নারীর সাথে শামসুল আলম শাহ্ চৌধুরী নামে এক আওয়ামীলীগ নেতার অন্তরঙ্গ ভিডিও ভাইরাল হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। তিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ ২য় ধাপের নির্বাচনে মোটর সাইকেল প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

রবিবার ১৯ মে রাতে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম Shohana Chowdhury নামের ফেসবুক আইডি থেকে দুটি অন্তরঙ্গের ভিডিও পোস্ট করা হয়। ক্যাপশন হিসেবে লেখা হয় “সাপাহার উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী আলহাজ্ব শামসুল আলম শাহ (অশ্লীল ভাষায়) কি তাহলে আর ভালো হবে না? এই জারুয়া জারুয়াই রয়ে গেল, আর আপনারা মোটরসাইকেল, মোটরসাইকেল বলে লাফাচ্ছেন, চিল্লায়ে বেড়াচ্ছেন কেন? কিসের জন্য?? ছিঃ ছিঃ ছিঃ,ধিক্কার জানাই।” এরপর বিষয়টি নিয়ে টক অব দ্যা শহরে পরিণত হয়।

দুই মিনিটের একটা ভিডিওতে দেখা যায়, চশমা পরিহিত এক ব্যক্তি মোবাইল দেখার পাশাপাশি কিছু খাচ্ছে। এরপর মোবাইলে কথা বলছেন। পাশে একটা ২৮-৩০ বছরের একটা নারী বসে আছে। পাশে বসা নারীটি এদিক সেদিক তাকাচ্ছেন, কখনও গালে হাত দিচ্ছেন। এক মিনিট ২৭ সেকেন্ডের আরেকটি ভিডিওতে দেখা যায়, তারা দুই জনই গায়ে পোশাক বিহীন। একে অপরকে অন্তরঙ্গভাবে জড়িয়ে ধরে চুম্বন করছে। আর নারীটি মাঝে মাঝে কিছু শব্দ উচ্চারিত করছেন। একপর্যায়ে পুরুষ ব্যক্তিকে খাটে বসিয়ে তার লুঙ্গি খুলিয়ে ফেলেন নারীটি।

এদিকে চরিত্রহীন, নারীলোভী, লম্পট, মিথ্যাবাদী ও অশ্লিল ভিডিও ভাইরাল হওয়া মোটরসাইকেল মার্কার উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শাসসুল আলম শাহ্ চৌধুরীর বিচারের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার রাত ৯টায় উপজেলা সদরের কলেজ গেট মহুরি পট্টিতে সাপাহারবাসীর আয়োজনে মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়। ব্যানারের এক পাশে শাসসুল আলম শাহ্ চৌধুরীর একক ছবি আর অন্য পাশে ভাইরাল ভিডিও’র সেই নারীর ছবি দেওয়া আছে।

জানতে চাইলে সাপাহার উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান এবং আনারস প্রতীকে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী শাহজাহান হোসেন মন্ডল মুঠোফোনে বলেন, শামসুল আলমের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে এটা জনগণ তাদের দৃষ্টিতে দেখবে। আমি কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছিনা জানিয়ে তিনি বলেন, সামনে নির্বাচনের সে প্রার্থী। তাই জনগণই বক্তব্য দিবে। তবে এটা একটা ন্যাক্কারজনক কাজ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

আর ভিডিও ভাইরালের বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী (মোটরসাইকেল প্রতীক) শামসুল আলম শাহ্ চৌধুরী

মুঠোফোনে বলেন, ওটা কয়েকদিন ধরেই চলছে। সেটা সম্পন্ন মিথ্যে ও বানোয়াট। মানুষকে বিভ্রান্তিতে ফেলানোর জন্য এটা করা হচ্ছে। মানববন্ধন ও নির্বাচনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যারা প্রতিপক্ষ তারা এসব করছে।

সাপাহার উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রেজা সারোয়ার মুঠোফোনে বলেন, আমি ঘটনাটি শুনেছি। যেহেতু আগামীকাল ভোট। এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। ভোট শেষ হলে দলীয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

নওগাঁ জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল খালেক মুঠোফোনে বলেন, আগামীকাল নির্বাচন। নির্বাচন শেষে যদি আমাদের কাছে কোনো তথ্য প্রমাণ আসে, তাহলে জেলা কমিটি একটা ব্যবস্থা করবে। শোকজও করতে পারে।

Facebook
Twitter
LinkedIn
WhatsApp
Email
Print