মার্চ ২, ২০২৪ ১০:৫২ পিএম

ছাত্রনেতা থেকে জননেতা সুলতান মাহমুদ খান রনি

এক সময়ের তুখোড় ও জনপ্রিয় ছাত্রনেতা মোঃ সুলতান মাহমুদ খান রনি উত্তর জনপদের গুরুত্বপূর্ণ জেলা শহর বগুড়া সরকারি শাহ্ সুলতান কলেজ ছাত্র- সংসদের সাবেক জিএস ও ভিপি। পরবর্তীতে বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের অন্যতম যুগ্ম আহ্বায়ক ও নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদকের দ্বায়িত্ব পালন করেন। মেধাভিত্তিক ও সুস্থ ধারার ছাত্র রাজনীতির অগ্রনায়ক ছিলেন তিনি। মূলত ছাত্রলীগের রাজনীতি করাকালীন সময়েই বগুড়ার সকল শ্রেণী-পেশার সাধারণ মানুষের মনে নিজের জায়গা করে নিতে সক্ষম হোন। সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি সহ বিভিন্ন অপকর্ম থেকে ছাত্রলীগকে মুক্ত রাখতে গ্রহণ করেছিলেন নানামুখী উদ্যোগ। সফলতাও পেয়েছিলেন। পরিণত হয়ে ওঠেন সাধারণ মানুষের আস্থার প্রতীকে। সাধারণ মানুষকে যেভাবে সময় দেন, তাদের কথা ধৈর্য্যের সাথে মনোযোগ দিয়ে শোনেন, সত্যিই তা বিরল। তিনি নিজ দলে ও দলের বাইরে দলমত নির্বিশেষে সকল শ্রেণীর মানুষের কাছে হয়ে ওঠেন জননন্দিত। সততা ও নিষ্ঠার মডেল হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে সকল শ্রেণীর মানুষের কাছে পরিচিতি পান সাদা মনের মানুষ হিসেবে। ছাত্র রাজনীতি শেষ করেই তার কর্মদক্ষতা ও নেতৃত্বগুণে পৌঁছে যান আওয়ামী লীগের মূল রাজনীতিতে। দুই দফায় দায়িত্ব পান জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদকের। সেখানেও সফলতার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন।

নিজেকে অসৎকর্ম, দলবাজি ও দুর্নীতির বাইরে রেখে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে গরীব-দুঃখী সাধারণ মানুষকে সাধ্যমত সাহায্য করে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। জনসেবা ও বিপদ-আপদে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সহযোগিতা করায় দ্রুত বাড়তে থাকে তার জনপ্রিয়তা। হয়ে ওঠেন সব বয়সী মানুষের নয়নমনি। জেলা জুড়ে পরিচিতি পান ক্লিন ইমেজ নেতার খ্যাতি। বগুড়ার ছাত্র-যুব সমাজকে সন্ত্রাস, মাদক, জঙ্গীবাদের হাত থেকে রক্ষা করতে এবং কম্পিউটার, ল্যাপটপ, মোবাইলের গেমসের আসক্তি থেকে মুক্ত করতে জেলা ক্রীড়া সংস্থার অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক ও জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের সভাপতি হিসেবে বগুড়া সদর উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন ও পৌরসভার সকল ওয়ার্ড সহ জেলা জুড়ে প্রতিনিয়ত ফুটবল, ক্রিকেট, কাবাডি, ব্যাডমিন্টন সহ বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলার আয়োজন করে চলছেন। সে কারণে বগুড়ার ছাত্র সমাজের কাছে তরুণ প্রজন্মের আইডল এ পরিণত হন ব্যক্তিত্বসম্পন্ন এই রাজনৈতিক মোঃ সুলতান মাহমুদ খান রনি।

বিগত ২০১৬ সালে বগুড়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোটে সদস্য নির্বাচিত হয়ে তিনি প্যানেল চেয়ারম্যান এর দায়িত্ব সফলভাবে পালন করেছেন। পরিষদে থাকাকালীন সময়ে বগুড়া সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌরসভার সকল ওয়ার্ডে মসজিদ-মাদ্রাসা-এতিমখানা, কবরস্থান-ঈদগাহ মাঠ, মন্দির-শ্মশান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মান, ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে স্কুলব্যাগ বিতরণ, বিভিন্ন ক্রীড়া সংগঠনকে খেলাধুলার সামগ্রী প্রদান, বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনকে আর্থিক অনুদান প্রদান, দুস্থ ও অসহায় মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ, প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ, অস্বচ্ছল মহিলাদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ সহ নানা উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন, যা দৃশ্যমান।

বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখে সমাজের অবহেলিত, সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন নিরবে-নিভৃতে। বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা, স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচী, ডায়াবেটিস পরিক্ষাসহ চোখের ছানি অপারেশন ও চক্ষু শিবিরের আয়োজন করেছেন। ব্যক্তিগত অর্থায়নে বিভিন্ন মাদ্রাসা ও এতিমখানার শিশুদের মাঝে পোশাক, খাদ্য ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরন, বিভিন্ন এলাকায় বৃক্ষরোপণ সহ ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ, শিশুশ্রমের মত সামাজিক অবক্ষয় রোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে অভিভাবক সমাবেশের আয়োজন করেছেন।

করোনাকালীন সময়ে নিজস্ব উদ্দ্যোগে বগুড়ায় সর্বপ্রথম পাঁচ হাজার মানুষের মাঝে হ্যান্ড স্যানিটাইজার প্রস্তুত ও বিতরণ করেন। ব্যক্তিগত অর্থায়নে প্রথম পর্যায়ে একশত পরিবারের মাঝে এক সপ্তাহের খাবার সামগ্রী ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করেন। এছাড়াও জেলা পরিষদের অর্থায়নে পরিষদের সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান হিসেবে সদর উপজেলায় বিপুল সংখ্যক কর্মহীন মানুষকে খাদ্য সামগ্রী, স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী ও নগদ অর্থ প্রদান করেছেন।

তাই একটি আধুনিক ও উন্নত-সমৃদ্ধ উপজেলা গড়তে মোঃ সুলতান মাহমুদ খান রনি’র মতো একজন সৎ-যোগ্য-দক্ষ ও স্মার্ট ব্যক্তিকে আসন্ন সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বগুড়াবাসী দেখতে চায়।

Facebook
Twitter
LinkedIn
WhatsApp
Email
Print