মার্চ ২, ২০২৪ ১০:২৮ পিএম

নন্দীগ্রামে সরকারি জায়গা দখল করে সাবেক সচিবের মার্কেট নির্মাণ

বগুড়া-নাটোর মহাসড়ক হাইওয়ের নন্দীগ্রাম উপজেলার কুন্দারহাট এলাকায় সড়ক ও জনপথ বিভাগের ২৮ শতক জমিতে জনস্বার্থে নির্মাণ করার কথা ছিল টার্মিনাল। সেই জমি দখল করে মার্কেট নির্মাণ শুরু করেছেন সাবেক এক অতিরিক্ত সচিব। সড়ক ও জনপথ বিভাগ নোটিশ দিলেও তিনি নির্মাণকাজ বন্ধ করেননি। এরই মধ্যে তিনটি দোকান ভাড়াও দিয়েছেন এই সচিব।

অভিযুক্ত এই সাবেক সরকারি কর্মকর্তা হাইয়ুল কাইয়ুমের বাড়ি নন্দীগ্রাম উপজেলার ভাটগ্রাম এলাকায়। তিনি শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এবং বাংলাদেশ কেমিক্যাল করপোরেশনের (বিসিআইসি) চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি অবসরে যান ২০২০ সালে।

স্থানীয়রা জানান, কুন্দারহাট এলাকায় ধানের বড় বাজার মহাসড়কে বসায় যান চলাচলে দুর্ভোগ হয়। এ কারণে মহাসড়কের পাশে ১৯৬৩ সালে অধিকগ্রহণ করা জমিটিতে টার্মিনাল করার পরিকল্পনা ছিল স্থানীয় প্রশাসনের। তিন বছর আগে ওই জমিতে কলাগাছ লাগিয়ে চারদিক দিয়ে ঘিরে ফেলেন সচিব হাইয়ুল কাইয়ুম। এর আগে ২০১৯ সালে ৫ কোটি টাকায় জমিটির পাশে ২১৩ শতক জায়গা কেনেন ওই সরকারি কর্মকর্তা। এর পরই সরকারি জমি দখলে পায়তারা শুরু করেন তিনি। সবশেষ এক সপ্তাহ আগে দোকান নির্মাণ শুরু করেন। এবং দ্রুততম সময়ে এই দোকারঘর নির্মাণ করে বিভিন্ন ব্যাক্তিদের ভাড়া দিয়ে রেখেছেন।

স্থানীয় কুন্দারহাট হাইওয়ে থানার কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি ও উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এম আর জামান রাসেল বলেন, হাইয়ুল কাইয়ুম সরকারের সাবেক বড় কমকর্তা হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস পান না। তবে এলাকাবাসী সড়ক ও জনপথ বিভাগকে জানিয়েছে।

তিনি বলেন, এই সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন এলাকায় কোটি কোটি টাকার সম্পদ কেনার অভিযোগ দুদক (দুর্নীতি দমন কমিশন) এ রয়েছে। এলাকায় তিনি কয়েক কোটি টাকার সম্পদ ও কিনেছেন।

বুড়ইল ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াউর জিয়া রহমান বলেন, কিছুদিনের মধ্যেই ওই জমিতে টার্মিনাল নির্মাণের কাজ শুরু হওয়ার কথা। তবে হঠাৎ করে ওই জায়গায় একজন মার্কেট নির্মাণ শুরু করেছেন বলে শুনেছি। টার্মিনালটি হলে পুরো উপজেলার কৃষক ও ধান ব্যবসায়ীরা উপকৃত হতেন। এ বিষয়ে হাইয়ুল কাইয়ুম বলেন, আমার জায়গায় আমি মার্কেট নির্মাণ করেছি, তবে টিনসেট করা ঘরের ভিতরে হাইওয়ে রাস্তার কিছু জায়গা পড়েছে। বগুড়া সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আসাদুজ্জামান বলেন, হাইয়ুল কাইয়ুমের বিরুদ্ধে সরকারি জমি দখল করে মার্কেট নির্মাণের খবর পেয়ে হাইয়ুল কাইয়ুমকে বার বার মার্কেট নির্মাণ কাজ বন্ধ করতে বলা হয়েছে কিন্তু তিনি না শুনে জোরপূর্বক ঘর নির্মাণ করেছেন। তবে অচিরেই ওই ঘর গুলো গুড়িয়ে দেওয়া হবে।

এনসিএন/এসকে

Facebook
Twitter
LinkedIn
WhatsApp
Email
Print